ফাইল ফটো

গত বছর বিশাল এক বহর নিয়ে প্রতিবেশি দেশ ভারত সফর করে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদেশের জনগণের দীর্ঘ দিনের ন্যায্য দাবি তিস্তার পানি বণ্টন নিয়ে কোনো সুরাহা করতে পারেননি। প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্য অনেক চুক্তিই করে এসেছেন। কিন্তু, তিস্তা নিয়ে জোরালো কোনো দাবি তিনি তুলেননি। এনিয়ে তখন জনমনে প্রচণ্ড ক্ষোভ সৃষ্টি হলেও নরেন্দ্র মোদি প্রটোকল ভেঙ্গে বিমানবন্দরে এসে শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানিয়েছেন, এটাতেই আওয়ামী লীগ নেতারা ছিল মহাখুশী।

দেশের সব স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে শেখ হাসিনা খালি হাতে দেশে ফিরলেও আওয়ামী লীগের নেতাদের দাবি ছিল দুই দেশের সম্পর্ক নাকি আকাশে পৌঁছে গেছে। ওই সময় আওয়ামী লীগ নেতারা বলছিলেন শেখ হাসিনার পরবর্তী সফরে তিস্তার বিষয়ে ফয়সালা হবে।

আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে শেখ হাসিনা দুই দিনের ভারত সফর করে এসেছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠকও করেছেন। কিন্তু তাদের আলোচনার এজেন্ডায় এবারও ছিল না তিস্তা।

সফরের শেষ দিন শনিবার একান্ত বৈঠক করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে। জানা গেছে, এই বৈঠকেও প্রধানমন্ত্রী তিস্তার বিষয়ে কোনো আলোচনা করেন নি। আর বৈঠক শেষেতো মমতা সাংবাদিকদেরকে বলেছেন, আমাদের কাছে তাদের কোনো চাহিদা নেই। এর মানে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিস্তা নিয়ে যে কোনো আলোচনা করেননি এটা প্রমাণিত হয়েছে।

এ সফরে পশ্চিমবঙ্গের কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শেখ হাসিনাকে সম্মানসূচক ডি-লিট ডিগ্রি দিয়েছে। তিস্তার মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি ইস্যু নিয়ে গণমাধ্যমগুলো কোনো কথা না বললেও শেখ হাসিনার ডি-লিট প্রচারে কোনো কমতি ছিল না।

দেশবাসীর প্রত্যাশা ছিল শেখ হাসিনা এবার তিস্তা নিয়ে কিছু একটা করে আসবেন। কিন্তু, এনিয়ে তিনি কোনো কথা না বলে তার ব্যক্তিগত একটি সম্মাননা নিয়ে ফিরে আসায় দেশের মানুষ প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়েছে। সমালোচনা করেছেন রাজনীতিক বিশ্লেষকসহ সচেতন মানুষও। আর বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দও করছেন কঠোর সমালোচনা।

সবাই বলছেন, তিস্তায় পানি নেই। উত্তরাঞ্চলের মানুষ সময়মতো পানি পাচ্ছে না। পুরো উত্তরবঙ্গই মরুভূমি হয়ে যাচ্ছে। শেখ হাসিনার ডিলিট ডিগ্রি দিয়ে জনগণের কী হবে? ভারত শুধু শেখ হাসিনাকে সম্মান করেছে। এদেশের মানুষকে সম্মান করেনি। বাংলাদেশের মানুষের সঙ্গে ভারত সরকারের কোনো সম্পর্ক উন্নয়ন হয়নি। সম্পর্ক হলে শুধু আওয়ামী লীগের সঙ্গে হয়েছে।

অ্যানালাইসিস বিডি

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here