বিএনপির ব্যাপক শোডাউন নিয়ে আদালত থেকে ফিরলেন বেগম খালেদা জিয়া (ভিডিও সহ)

0
1151

জিয়া অরফানেজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় হাজিরার শেষে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ফেরার সময় হাইকোর্ট মাজার গেটের সামনে থেকে শুরু করে রুপসী বাংলা হোটেল পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সামনেই টানা ২য় দিন ব্যাপক শোডাউন করেছে বিএনপির নেতাকর্মীরা।

বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) বেলা আড়াইটার দিকে পুরান ঢাকার বকশিবাজার আলীয়া মাদরাসার মাঠে স্থাপিত বিশেষ আদালত থেকে বের হন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। আদালত থেকে বের হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মোড়ে আসলে অপেক্ষমান দলটির নেতাকর্মীরা তার গাড়িবহরে যুক্ত হন।

গাড়িবহর হাইকোর্ট মাজারের সামনে এলে ভেতরে অপেক্ষমান বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী গাড়িবহরে যোগ দেন। পথে পথে গাড়িবহরে নেতাকর্মীরা যুক্ত হওয়ায় যে পথ দিয়ে বেগম জিয়া গুলশানের দিকে অগ্রসর হচ্ছিলেন সেসব রুটে যানচলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে।

বিএনপির ব্যাপক শোডাউনের ভিডিওঃ

[ভিডিওটি দেখতে প্লে ▷ বাটনে ক্লিক করুন]

এদিকে গত সপ্তাহে হাইকোর্টের মাজার গেটে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছিল। তবে আজকের (বুধবার) চিত্র ছিল একেবারেই ভিন্ন। সকাল থেকে আদালত প্রাঙ্গণে অবস্থানরত নেতাকর্মীদের সঙ্গে দায়িত্বরত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

খানিক সময়ের জন্য হাইকোর্টের মাজার গেট আটকে রাখলেও খালেদা জিয়াকে বহনকারী গাড়িটি দোয়েল চত্বর অতিক্রম করার কিছুক্ষণ পরই গেট খুলে দেয়া হয়। এ সময় মিছিল আর স্লোগানে গাড়িবহরের সঙ্গে যুক্ত হন হাইকোর্টের ভেতর অবস্থানরত হাজারো নেতাকর্মীরা।

পরে হাইকোর্টের সামনে অবস্থিত কদম ফোয়ারা, মৎস ভবন মোড়, কাকরাইল মোড় হয়ে হয়ে রুপসী বাংলা হোটেল পর্যন্ত নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ধীরে ধীরে অগ্রসর হন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

[ভিডিওটি দেখতে প্লে ▷ বাটনে ক্লিক করুন]

খালেদা জিয়ার আদালতে হাজিরা দেয়াকে কেন্দ্র করে পুরান ঢাকার বিশেষ জজ আদালত এলাকা ও আশপাশ এলাকায় কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল। বিশেষ করে হাইকোর্ট এলাকায় নজরদারি ছিল বেশি।

খালেদা জিয়ার গাড়িবহরের সামনে মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দীন টুকু, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসিন আলী, ছাত্রদলের সভাপতি রাজিব আহসান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক করিম সরকার ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের দফতর সম্পাদক আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারী প্রমুখ।

গত সপ্তাহেও তিন দিন হাজিরা দিতে বকশিবাজারে যান খালেদা জিয়া। হাজিরাকে কেন্দ্র করে গত সপ্তাহে ছাত্রদলের ৫৩ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন সংগঠনটির দফতর সম্পাদক আবদুস সাত্তার পাটওয়ারী।

-ব্রেকিংনিউজ

আদালত থেকে মিছিল নিয়ে ফিরলেন খালেদা জিয়া

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিয়ে বুধবার ( ২৭ ডিসেম্বর) দুপর আড়াইটায় আদালত থেকে বেরিয়ে গেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এসময় তার সঙ্গে আবারও মিছিল করতে করতে আদালত চত্বর থেকে ফিরেছে দলীয় নেতা-কর্মীরা। এর আগে চতুর্থ দিনের মতো যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছে আসামিপক্ষ। আগামীকাল বৃহস্পতিবার আবারও যুক্তি উপস্থাপন করা হবে।ঢাকার বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান এ দিন ধার্য করেন। এ সময় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিতে বুধবার বেলা ১১টা ১৪ মিনিটে ঢাকার বকশীবাজার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ আদালতে পৌঁছান বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। পরে বেলা ১১টার ১৮ মিনিটের দিকে খালেদা জিয়ার আইনজীবী আব্দুর রেজ্জাক খান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু করেন। দুপুর ২টা ২৮ মিনিটে আজকের দিনের মতো যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়। পরে খালেদা জিয়া আদালত ত্যাগ করেন।

বিচারক ড. আখতারুজ্জামানের আদালতে মামলা দু’টির বিচার চলছে।গত ২১ ডিসেম্বর মামলা দুটির যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য আগামী ২৬-২৮ ডিসেম্বর এ দিন ধার্য করেন।প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের ৮ আগস্ট খালেদা জিয়াসহ চার জনের বিরুদ্ধে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ মামলায় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে দুদক।মামলায় বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরী এবং তার তৎকালীন একান্ত সচিব জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খানকে আসামি করা হয়।এতিমদের জন্য বিদেশি থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগে জিয়া অরফানেজ মামলাটি দায়ের করে দুদক।

বিএনপির ব্যাপক শোডাউনের ভিডিওঃ

[ভিডিওটি দেখতে প্লে ▷ বাটনে ক্লিক করুন]

২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় এই মামলাটি দায়ের করা হয়। ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট দুদক আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। অভিযোগপত্রে খালেদা জিয়া, তার বড় ছেলে তারেক রহমান, সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে আসামি করা হয়।

-শীর্ষ খবর

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here